আবারও ঐ মঞ্চে ফিরে যেতে ইচ্ছে করে

কী! জমা করে নি?ওর কী শাস্তি হবে?…….

উপরের লাইনগুলো আমার অভিনীত প্রথম মঞ্চ নাটক “নীল ময়ূরের যৌবনের”   দুটি সংলাপ।বাংলাদেশে স্টুডিও থিয়েটারের নামের সাথে যে নাট্য সংগঠনটির নাম গৌরবের সাথে উচ্চারিত হয়  বরিশালের সেই ‘শব্দাবলী গ্রুপ থিয়েটারের’ “নীল ময়ূরের যৌবন” হচ্ছে একটি অন্যতম সফল  একটি প্রযোজনা। জনপ্রিয় লেখিকা সেলিনা হোসেনের “নীল ময়ূরের যৌবন” উপন্যাসের নাট্যরুপ দিয়েছন বরিশালের সুনন্দ বাশার এবং নির্দেশনায় ছিলেন শব্দাবলীর কর্ণধর সৈয়দ দুলাল।

নাটকের মোট ৪টি দৃশ্যে আমি অভিনয় করি ।তবে শুধুমাএ ১টি দৃশ্যেই  দর্শকরা আমা সংলাপ শুনতে পায় ।আমি অভিনয় করি বৌদ্ধ রাজার চরিএ।সমাজের নীচু শ্রেনীর লোকজন রাজ পরিবার কর্তৃক যে বিভিন্নভাবে শোষিত হয় তাই ফুটিয়ে তোলেন নির্দেশক।

নির্দেশক নাটকের বেশ কয়েক জায়গায়  আমাদের সমাজের বর্তমান চিএপট  তুলে ধরেন।নাটকের কোন এক দৃশ্যে এমনই সংলাপ ছিল “আইন তো আমরাই তৈরী করি;আমরা বেচবো,উড়াবো এবং তছনছ করব, যা খুশি তাই করব….”।নির্দেশক এখানে বুঝাতে চেয়েছেন যে,”আমাদের মত গরীব দেশে যেখানে পনেরো কোটি মানুষ তাদের মৌলিক অধিকার থেকে আজও বঞ্চিত হচ্ছে সেখানে দেশ পরিচালনার মত মহৎ কাজের সুযোগ পেয়ে আমাদের জনপ্রতিনিধীরা  লুটেপুটে খাওয়ার কাজেই ব্যস্ত রয়েছে”।

নাটকটির দুটি উল্লেখযোগ্য সাফল্য উল্লেখ না করলেই নয়।বরিশালে মঞ্চ নাটকের সাফল্যের ক্ষেএে  যা আজও শীর্ষ অবস্হানে রয়েছে।  ২০০৫ সনে বাংলাদেশ চলচিএ সাংবাদিক সমিতি(বাচসাস) কর্তৃক   “নীল ময়ূরের যৌবন”  শ্রেষ্ঠ মঞ্চ নাটকের স্বীকৃতি  এবং বৌদ্ধ রাজার চরিএে অভিনয় করে আমার শ্রেষ্ঠ মঞ্চ অভিনেতার মনোনয়ন পাওয়া।বলতে খুবই ভাললাগে যে,ঢাকার বাইরে তখন প্রথমবারের মত আমাকে শ্রেষ্ঠ মঞ্চ অভিনেতার মনোনয়ন দেওয়া হয় ।পরবর্তিতে এনটিভি’কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে আমি বলেছিলাম “ঢাকার বাইরে মফস্বল শহরেও যে অনেক ভাল নাটক হয় “নীল ময়ূরের যৌবন” তারই উদাহরন। তবে পুরষ্কারের ট্রফিটি শেষ পর্যন্ত যার ভাগ্যে জুটেছে তাকে হয়ত নতুন ভাবে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার প্রযোজন  হবে বলে মনে করি না।তিনি আর কেউ নন,বিশিষ্ট অভিনেতা মামুনুর রশিদ।

জীবনের প্রথম নাটকে অভিনয় করেই বাচসাসের শ্রেষ্ঠ মঞ্চ অভিনেতার মনোনয়ন এবং মামুনুর রশিদের মত বর্ষিয়ান অভিনেতার সান্নিধ্য পাওয়া যা আমার কাছে ঐ পুরষ্কার পাওয়ার থেকেও অনেক বড় পাওয়া ছিল।

এতদিন পর নাটকটি নিয়ে লিখতে ইচ্ছে হওয়ার বিশেষ একটা করণও রয়েছে।২০০৫ সনের আজকের দিনেই অর্থাৎ ৩০ ডিসেম্বর ছিল “নীল ময়ূরের যৌবনের”  প্রিমিয়ার শো।

যারা নাটকটি দেখতে মিস করেছেন  তাদের জন্যই  আমার এই দীর্ঘ  পোস্টটি এবং নাটকের কিছু ছবি।

আশাকরি আপনাদের ভাল লাগবে।

ছবির জন্য এখানে ক্লিক করুন  PICTURES

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s