মস্কোতে বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্দোগে শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান বলেছেন,বিদেশে বসবাসকারি প্রতিটি বাংলাদেশি হচ্ছেন একজন রাষ্ট্রদুত। বিদেশে দেশের ভাবমূর্তি ফুটিয়ে তুলতে প্রবাসী বাংলাদেশিদেরকে এগিয়ে আসতে হবে। আমাদের চলায় বলায় সবাইকে এটুকো মনে রাখতে হবে,আমরা গৌরবান্বিত ইতিহাসের সন্তান। মহান শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে মস্কোস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্দোগে গতকাল রোববার দূতাবাস মিলনায়তনে আয়োজিত আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
প্রতিমন্ত্রী ৫২’ র ভাষা আন্দোলনে শহীদদের আত্বার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে তার লেখা একটি কবিতা পাঠের মধ্য দিয়ে বক্তব্য শুরু করেন। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে তৎকালিন সোভিয়েত ইউনিয়নের অভুতপূর্ব সাহায্য সহযোগিতা প্রদান করায় উপস্থিত রাশান বন্ধুদের তিনি কৃতজ্ঞতা জানান।
ইয়াফেস ওসমান নিজের দেয়া বক্তব্যে বলেন,বর্তমান সরকার একটি ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে চলছে। এরই অংশ হিসেবে গত ২১ ফেব্রুয়ারি আমাদের প্রচেষ্টায় মাতৃভাষাকে প্রযুক্তির কাজে লাগানোর জন্য আমরা মোবাইল ফোনে বাংলায় খুদে বার্তা(এসএমএস)চালু করেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হসিনা এর উদ্বোধন করেছেন। প্রতিমন্ত্রী বলেন,বাংলা ভাষাকে পুরো পৃথিবীতে ছড়িয়ে দিতে যে মহান নেতা গর্বভরে জাতিসংঘে বাংলায় ভাষণ দিয়েছিলেন এবং আমরা অত্যন্ত আনন্দিত ও গৌরবান্বিত এ কারণে যে বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা তিনি প্রতিবারই এই বাংলা ভাষাতে বক্তব্য প্রদান করে থাকেন।
বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত ডঃ এসএম সাইফুল হক নিজের দেয়া বক্তব্যে বলেন,আমরা এ বছর ৬০তম ভাষা দিবস পালন করছি এবং এটি আমাদের জন্য সত্যিই বড় একটি সুযোগ যেখানে আমাদের সাথে এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত আছেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী। রাষ্ট্রদূত মুক্তিযুদ্ধের কথা স্মরণ করে বলেন,স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় আমাদের দুঃখের দিনে রাশিয়া(তৎকালিন সোভিয়েত ইউনিয়ন)শুধু কথা দিয়েই সহযোগিত করে নি বরং সার্বিকভাবে সাহায্য করেছে। রাষ্ট্রদূত আরও বলেন,বাংলাদেশের রুপপুরে পারমানবিক বিদ্যুতকেন্দ্র নির্মাণের জন্য ১৯৬৪ সালে যে জায়গা নেয়া হয়েছিল সেখানে আমরা আজ রাশিয়ার সহযোগিতায় পারমানবিক বিদ্যুতকেন্দ্র তৈরির চেষ্টা করছি।
রাষ্ট্রদূতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই আলোচনা সভা পরিচালনা করেন দূতাবাসের কাউন্সেলর তারেক আহমেদ। সভার শুরুতেই মহান শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি,প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দেয়া বিশেষ বানী পাঠ করে শোনানো হয়।
অনুষ্ঠানে আরও বক্তৃতা দেন বাংলাদেশে রাশিয়ার নতুন রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগ পাওয়া আলেকজান্ডার আলেক্সেয়েভিচ,পুশকিন স্টেট ভাষা ইনস্টিটিউটের প্রেসিডেন্ট ভিতালী কাস্তোমারভ,রসআতোমের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের পরিচালক মিখাইল লিসেনকা প্রমুখ। মস্কোতে বসবাসরত বাংলাদেশ কমিউনিটির নানা পেশার প্রবাসী বাংলাদেশি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s